Youtube Channel Subscribe us

সামুদ্রিক তরঙ্গের সঞ্চয় কার্যের ফলে গঠিত ভূমিরূপ এর বর্ণনা করো।


সামুদ্রিক তরঙ্গের সঞ্চয় কার্যের ফলে গঠিত ভূমিরূপ এর বর্ণনা করো।

সমুদ্র সৈকত বা বেলাভূমি :

তরঙ্গ বাহিত নুড়ি, কাঁকর, বালি ইত্যাদি তটভূমির উপর সঞ্চিত হয়ে যে মৃদু ঢালু সমতল ভূমি গড়ে তোলে তাকে সমুদ্র সৈকত বা বেলাভূমি বলে।

বৈশিষ্ট্য :
1. ঊর্ধ্ব সৈকতে স্থূল পদার্থ নিম্ন সৈকতে সূক্ষ্ম পদার্থের সঞ্চয় ঘটে।
2. এখানে ভূমির ঢাল ১° থেকে ২° হয়।
3. এখানে স্থলজাত পদার্থের সঞ্চয় বেশি ঘটে।
4. এটি সুনামি দ্বারা সম্পূর্ণ প্রসারিত হতে পারে।

শ্রেণীবিভাগ :
a) উবুল সৈকত
b) বালুকাময় সৈকত
c) পকেট সৈকত
d) অর্ধ চন্দ্রাকৃতি সৈকত

উদাহরন :

দীঘা , গোয়া উপকূলে দেখা যায়

সামুদ্রিক বাঁধ :

তরঙ্গ ও স্রোতবাহিত নুড়ি, বালি, কাকর ইত্যাদি বস্তু নিমজ্জিত বা সমুদ্রপৃষ্ঠের উপরে সঞ্চিত হয়ে যে স্তূপের সৃষ্টি করে তাকে সামুদ্রিক বাঁধ বলে।

শ্রেণীবিভাগ :
সামুদ্রিক বাঁধ বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে --

A) পুরোদেশীয় বাঁধ :

বাঁধের দুই প্রান্ত যখন স্থলভাগের সঙ্গে যুক্ত না হয়ে উপকূলের সমান্তরালে আংশিক নিমজ্জিত হয়ে অবস্থান করে তখন তাকে পুরোদেশীয় বাঁধ বলে।
এই বাঁধের পশ্চাতে উপ হ্রদের সৃষ্টি হয়।

উদাহরন :
উড়িষ্যা উপকূলে এই বাঁধ দেখা যায় এবং চিলকা একটি উপহ্রদ।

B) অনুতটীয় বাঁধ :

উপকূল থেকে সমুদ্রের দিকে কিছুটা দূরে অনুতটীয় অংশে বালির বাঁধকে অনুতটীয় বাঁধ বলে। উচ্চ জোয়ারে এই বাঁধগুলি ডুবে যায়।

উদাহরন :
গোয়া উপকূলে এসব বাঁধ দেখা যায়।

C) প্রতিবন্ধক বাঁধ :

যখন পুরোদেশীয় বাঁধ সমুদ্রপৃষ্ঠের উপরে স্থায়ীভাবে অবস্থান করে তখন তাকে প্রতিবন্ধক বাঁধ বলে।
এই বাঁধ দ্বারা ঘেরা দ্বীপকে প্রতিবন্ধক দ্বীপ বলে।

উদাহরন :
টেক্সাস উপকূলে এমন বাঁধ দেখা যায়।

স্পিট:

যখন কোন বাঁধের এক প্রান্ত স্থলভাগের সঙ্গে যুক্ত থাকে এবং অপর প্রান্ত সমুদ্রের দিকে প্রসারিত থাকে তখন তাকে স্পিট বলে।

শ্রেণীবিভাগ :
প্রকৃতি বৈশিষ্ট্য অনুসারে স্পিট বিভিন্ন প্রকার হয় --

A) হুক স্পিট :

স্পিটের প্রসারিত অংশ যখন স্থলভাগের দিকে বেঁকে যায় তখন তাকে হুক স্পিট বলে।
পরপর একাধিক হুক স্পিট গঠিত হলে তাকে যৌগিক হুক স্পিট বলে।

উদাহরন :
অন্দ্র উপকূলে দেখা যায়।

B) ঘূর্ণন স্পিট :

তরঙ্গের ক্রমাগত দিক পরিবর্তনের ফলে স্পিট যখন ঘূর্ণির আকারে গড়ে ওঠে তখন তাকে ঘূর্ণন স্পিট বলে।

উদাহরন :
উত্তর ভারত মহাসাগরে দেখা যায়।

C) কাস্পেট স্পিট :

যখন দুটি পুরোদেশীয় স্পিট দুদিক থেকে ক্রমশ বাড়তে বাড়তে পরস্পর মিলিত হয় তখন তাকে কাস্পেট স্পিট বলে।

উদাহরন :

কেরল উপকূলে দেখা যায়।

টম্বোলো :

টম্বোলো একটি ইতালীয় শব্দ যার অর্থ দ্বীপ সংযোগকারী বাঁধ অর্থাৎ কোন সামুদ্রিক বাঁধ একটি বা দুটি দ্বীপকে উপকূলের সঙ্গে যুক্ত করে তখন তাকে টম্বোলো বলে। 

 বৈশিষ্ট্য :
 1. এটি উপকূলের সঙ্গে সেতু রূপে কাজ করে।
 2. এখানে লেগুন দেখা যায়।
 3. একাধিক টম্বোলোর অবস্থানকে টম্বোলি বলে।

উদাহরন :
মান্নার উপসাগরের হেমার দ্বীপটি টম্বোলো দ্বারা গঠিত।

উপ হ্রদ বা লেগুন :

উপকূল অঞ্চলে উন্মুক্ত সাগর থেকে বালুচর ও প্রবাল দ্বীপ দিয়ে বিচ্ছিন্ন নোনা জলের হ্রদকে লেগুন বলে।

বৈশিষ্ট্য :
1. এটি বিক্ষিপ্ত বা আংশিক আবদ্ধ উপকূলে লবণাক্ত জলভাগ।
2. এর মধ্যস্থিত জল শান্ত প্রকৃতির হয়।
3. এখানে অনেক সময় ম্যানগ্রোভ দেখা যায়।

উদাহরন :
ভারতের বৃহত্তম লেগুন হল উড়িষ্যার চিলকা হ্রদ।

আরো প্রশ্নাবলী


Next Post Previous Post
×