Youtube Channel Subscribe us

রেনেসাঁর লক্ষণ গুলি কিভাবে নীলধ্বজের প্রতি জনা পত্রকাব্যে প্রতিফলিত হয়েছে লেখ।


Q. অথবা, ঊনবিংশ শতাব্দীর নতুন যুগ চেতনায় মধুসূদনের মধ্যে কিভাবে ক্রিয়াশীল ছিল তা নীলধ্বজের প্রতি জনা অবলম্বন নিয়ে আলোচনা কর।

মাইকেল মধুসূদন দত্তের নীলধ্বজের প্রতি জনা পত্রকাব্যটি পুরাণের কাহিনী ও চরিত্র সমূহের অবলম্বনে রচিত হলেও এই কবিতাটি প্রকৃতপক্ষে কবির নিজস্ব ব্যক্তি চেতনার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আর এই ব্যক্তি চেতনার প্রেক্ষাপটে রয়েছে উনিশ শতকের নবজাগরণের চেতনা।

সদ্য পুত্র হারানো মা হিসেবে পুত্র হত্যাকারী পার্থের সঙ্গে স্বামী নিলধ্বজের সাক্ষ তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারেন নি। তাই নারী হিসেবে মৌন না থেকে প্রতিবাদের বিক্ষোবে মূখর হয়েছিলেন তিনি। রেনেসাঁ কথাটির অর্থ হল নবজাগরণ। উনিশ শতকে যে নবজাগরণ ঘটেছিল তা দেখা গিয়েছিল রানী জনার চরিত্রে। তাই জনা আহ্বারন করেছেন - 'ক্ষেত্র ধর্ম ক্ষেত্র কর্ম সৃধ ভূজ বলে'।, জনার এই আহবানে ব্যক্তিগত আদর্শের প্রতি যে দায়বদ্ধতা তা নবজাগরণ আমাদের শিখিয়েছিল --

"শিক্ষা আনে চেতনা
চেতনা আনে বিপ্লব
বিপ্লব আমি মুক্তি।"

নবজাগরণ মানুষের মধ্যে যে শিক্ষার বিস্তার ঘটিয়েছিল তাই মানুষের মধ্যে চেতনাকে জাগ্রত করে তুলেছিল। এই চেতনার দ্বারা উদ্বুদ্ধ হয়ে বিপ্লবের মাধ্যমে মানুষ মুক্তি এনেছিল। আলোচ্য জনা চরিত্রটিতেও প্রাচীনকালের নারী মমতা দূর করে মাইকেল মধুসূদন দত্ত নবজাগরণের প্রতিবাদী চরিত্রের অবতারণা করেছেন।

পার্থ, কুন্তী এবং দ্রৌপদীর চরিত্রে নিচতা এবং হীনতা প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে যেভাবে জনা মুক্তির সাহায্যে নিয়েছেন পারি পাশ্ব এবং ঘটনা প্রবাহকে বিশ্লেষণ করেছেন তা একান্তভাবেই নবজাগরণের মানসিকতা গঠনের পরিণতি ।

পাঁচালী লোক মাতা রমা কিংবা পার্থ রথিকুল পতি, এই সব ধারণাকে তিনি সর্বদা ভ্রান্ত প্রমাণ করতেই সচেষ্ট হয়েছেন। তাই তার কন্ঠে ধ্বনিত হয়েছে --

                  " স্বৈরিনী তনয় তার জারজ অর্জুনে
             কি লজ্জা? কি গুনে তুমি পুজো রাজরথী।"

অদৃষ্টের পরিহাসের সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর চেষ্টাও জনার মধ্যে দেখা যায়। শেষ পর্যন্ত আত্ম বিসর্জনের মাধ্যমে নিজের আদর্শকে বাঁচিয়ে রাখার যে চেষ্টা যে ভাবে তার মধ্যে দেখা গিয়েছিল তা নতুন যুগ চেতনার জাত মানসিকতারই ফসল। এইভাবেই নবজাগরণ নীলধ্বজের প্রতি জনা কবিতায় অন্তত গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব বিস্তার করেছিল।

নিলধ্বজের প্রতি জনা - মাইকেল মধুসূদন দত্ত অন্যান্য প্রশ্নোত্তর


Next Post Previous Post
×