মার্কেনটাইল মূলধন বলতে কি বোঝায় ? এর প্রধান বক্তব্যগুলো আলোচনা করো । Class 12 History Suggestions And Important Questions Answers

ইউরোপীয় মহাদেশে খ্রিস্টীয়  সড়শ শতক থেকে অষ্টাদশ শতক সময়ে অর্থনীতিতে এক নতুন মতবাদের উদ্ভব ঘটেছিল তার নাম মার্কেন্টাইল মতবাদ

এই মতবাদের প্রবক্তা হলেন ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ অ্যাডাম স্মিথ ।

Mercantile capital

‌মার্কেনটাইল মূলধন :-

অ্যাডাম স্মিথ তার ওয়েলথ অফ নেশন্যাল গ্রন্থে মার্কেনটাইল মতবাদের ব্যাখ্যা দিয়েছেন । পঞ্চদশ ও সড়স শতকে ইউরোপে ব্যবসা বাণিজ্যের বিকাশ ঘটে বিভিন্ন ভৌগলিক আবিষ্কার বাণিজ্যের পথকে মসৃণ করে । ইংল্যান্ড , ফ্রান্সের মতো ইউরোপের অন্যান্য দেশিও ও বৈদেশিক বাণিজ্য উৎসাহিত হয় । এর ফল স্বরূপ ইউরোপে পুজিগত পরিবর্তন আসতে শুরু করে । এই পরিবর্তনের ধারাকে বানিজ্যিক পুঁজিবাদ বা মার্কেনটাইল মতবাদ বলা হয় ।


উদ্দেশ্য :

ইউরোপের দেশগুলো বিভিন্ন উদ্দেশ্যে এই মূলধন নীতি গ্রহণ করেছিল ।

১. এর মাধ্যমে মূলত ইউরোপীয় দেশগুলোর রাষ্ট্রিয় শক্তি বৃদ্ধি করতে ছেয়েছিল ।

২. ব্যবসা বাণিজ্যের সমৃদ্ধির মাধ্যমে রাষ্ট্রের উন্নতি সাধন করা ।

৩. আমদানি কমিয়ে উৎপাদন ও রপ্তানি বৃদ্ধি করা ।

৪. সোনা ও রূপার সঞ্চয় বৃদ্ধি করা ।


মার্কেনটাইল নীতির প্রয়োগ :

ইউরোপের দেশগুলো মার্কেনটাইল নীতি অনুসরণের মাধ্যমে মূলধন বাড়াতে শুরু করে ।

১. ইংল্যান্ডের রাণী প্রথম এলিজাবেথের আমলে এই নীতি প্রথম গৃহীত হয় । এবং এলিভার ক্রম - ওয়েলের আমল পর্যন্ত ইংল্যান্ডে তা বলবৎ ছিল ।

২. ফ্রান্সের সম্রাট চতুর্দশ লুই এর আমলে এই নীতি গৃহীত হয় এবং এই নীতির প্রয়োগ ঘটিয়ে লুই এর প্রধানমন্ত্রী কলকর্ট ফ্রান্সের আর্থিক সমৃদ্ধি ঘটান ।


মার্কেনটাইল নীতির প্রভাব : 

১. এই নীতির মাধ্যমে মানুষের মনে এই ধারণা জন্ম নেয় যে আর্থিক সমৃদ্ধি শক্তি ও প্রতিপত্তির উৎস ।

২. এই নীতি পরিবর্তনকালীন পুঁজিবাদী উত্থানে সাহায্য করেছিল ।

৩. ইউরোপীয় দেশগুলো নিজেদের মধ্যে উপনিবেশ দখলের প্রতিযোগিতা শুরু করে । এশিয়া, আফ্রিকা ও আমেরিকাতে ইউরোপীয়দর উপনিবেশ গড়ে ওঠে । ফলে ইউরোপীয় সাম্রাজ্যবাদের বিস্তার ঘটে ।


সমালোচনা :

মার্কেনটাইল নীতিকে অনেকে সমালোচনা করে বলেছেন - 

১. ডেভিড হিউম্ বলেন ইউরোপের দেশগুলি এই নীতি দ্বারা অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে পারেন ।

২. স্মিথের মতে এই মূলধন ব্যবস্থায় ব্যবসায়ী গোষ্ঠী এবং রাষ্ট্রের মধ্যে এক অশুভ সমঝোতা গড়ে উঠেছিল ।

৩. এই নীতিতে অর্থনীতি সম্পর্কে সচেতনতা,  বাস্তবতা বোধ, বানিজ্যিক লাভ লোকসান প্রভৃতি সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণার অভাব ছিল ।

Next Post Previous Post
1 Comments
  • Unknown
    Unknown September 5, 2020 at 6:15 PM

    খুব ভালো.... হয়েছে... আরো ভালো হোক এই আসা রাখবো

Add Comment
comment url