Youtube Channel Subscribe us

কিন্তু বৃথা এই গঞ্জনা - বক্তা কে? তিনি কাকে গঞ্চনা দিতে চেয়েছেন? কেন তার বৃথা মনে হয়েছে?


আলোচ্য অংশটি মাইকেল মধুসূদন দত্ত রচিত বীরাঙ্গনা কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত নীলধ্বজের প্রতি জনা শীর্ষক পত্র কাব্যটি থেকে নেওয়া হয়েছে ।

মন্তব্যটির বক্তা হলেন মহেশ্বরী পুরীর রানি জনা, তার স্বামী নিলধ্বজকে গঞ্জনা দিতে চেয়েছেন।
রানী জনার এই গঞ্জনা বৃথা । এর কারণগুলি নিম্ন রূপ -
        
প্রথমত,
         রাজা নিলদ্ধজ হলেন রানী জনার স্বামী তাই হিন্দু শাস্ত্র মতে স্বামীকে গঞ্জনা দেওয়া মহাপাপ তাই রানী জনা উল্লেখ করেছেন -

         "পরিবেশ বিষম পাপে গুঞ্জিলে তোমারে"

দ্বিতীয়,
রানী জনা একজন কুলো নারী, তাই বিধির বিধান যে পরাধীন জনার নিজের শক্তি নেই যে সে তার মনের বাসনা পূরণ করবে, অর্থাৎ তার পুত্রের হত্যাকারী অর্জুনের বিনাশ করা উচিত ছিল তার স্বামী রাজা নিলধ্বজের। কিন্তু ভাগ্য দোষে জনার স্বামী জনার প্রতি বিরূপ, তাই জনা উল্লেখ করেছেন -
              "তুমি পতি ভাগ্য দষে বম মম প্রতি "
এইসব ভেবে রানী জনার মনে হয়েছে তার স্বামী নিলধ্বজকে গঞ্জনা করা বৃথা ।

তৃতীয়
আরও একটি কারণে রানী জনার মনে হয়েছে তার স্বামী নীলধ্বজ কে গঞ্চনা করা বৃথা। সেই কারণটি হল তার একমাত্র পুত্র প্রবীর তাকে ছেড়ে চলে গেছে সেতো আর ফিরে আসবেনা। সেই জন্যই তিনি বলেছেন
             "এ জনাকীর্ণ ভবস্থান আজই
             বিজন জনার পক্ষে"

রানী জনা অনুধাবন করতে পেরেছিলেন যে গেছে সে কোনদিনও ফিরে আসতে পারবে না। অর্থাৎ তার পুত্র প্রবীর তার কাছে আর কখনো ফিরে আসবে না। তাই রাণী জনার মনে হয়েছে এই অবস্থায় কাউকে গঞ্জনা করা বৃথা।।

নিলধ্বজের প্রতি জনা - মাইকেল মধুসূদন দত্ত অন্যান্য প্রশ্নোত্তর


Next Post Previous Post
×